,

ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের ভালো ফলে দেশজুড়ে উচ্ছ্বাস

ভিকারুননিসা নূন স্কুলে শিক্ষার্থীদের উল্লাসপ্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) ও জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেটসহ (জেএসসি) ইবতেদায়ি ও জুনিয়র দাখিল পরীক্ষায় অংশ নেওয়া ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের ভালো ফলে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের স্কুলগুলোতে এখন চলছে উল্লাস। শিশু শিক্ষার্থী, তাদের অভিভাবক ও স্কুল শিক্ষক হয়ে এই উল্লাস দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে উচ্ছ্বাস হয়ে। এর বিপরীতে প্রত্যাশিত ফল না পাওয়ায় অনেক শিক্ষার্থীকে অশ্রুসজল নয়নেও দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। তবে আগের বছরের তুলনায় পিইসি ও জেএসসি পরীক্ষায় পাসের হার কম হলেও সার্বিক ফলে সন্তুষ্টির কথা জানিয়েছে বিভিন্ন স্কুলের কর্তৃপক্ষ।

শনিবার (৩০ ডিসেম্বর) বেলা পৌনে ১১টার দিকে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার ফলের অনুলিপি তুলে দেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী। এ বছর প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার গড় পাসের হার ৯৫ দশমিক ১৮ শতাংশ। আর ইবতেদায়ী পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৯২.৯৪ শতাংশ। জিপিএ ৫ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২ লাখ ৬২ হাজার ৬০৯। অন্যদিকে, একই দিন বেলা ১২টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার ফলের অনুলিপি হস্তান্তর করেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। জেএসসিতে গড় পাসের হার ৮৩.১০ শতাংশ। আর জিপিএ-৫ পেয়েছে এক লাখ ৮৪ হাজার ৩৯৭ জন। জেডিসিতে গড় পাসের হার ৮৬.৮০ শতাংশ এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭ হাজার ২৩১ জন।

ফল প্রকাশের পরপরই রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে ছড়িয়ে যায় খুশির আমেজ। রাজধানীর স্কুলগুলোর মধ্যে এবার প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় শতভাগ পাশ করেছে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা। এই স্কুলে মোট ১ হাজার ৭০০ পিইসি পরীক্ষার্থীর মধ্যে মাত্র ৩৯ জন জিপিএ ৫ পায়নি। শনিবার দুপুরে প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এখন পর্যন্ত যা ফল হাতে পেয়েছি, তাতে আমি সন্তুষ্ট। আমাদের এই সাফল্যের পেছনে অভিভাবক ও শিক্ষকদের যথেষ্ট পরিশ্রম রয়েছে। যারা জিপিএ ৫ পায়নি, তাদের উদ্দেশ্যে বলবো— আরও বেশি মনোযোগী হও।’

Leave a Reply