,

Home » Top » আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হল চট্টগ্রামের (আঞ্চলিক) জেলা ইজতেমা

আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হল চট্টগ্রামের (আঞ্চলিক) জেলা ইজতেমা

এম জুনায়েদ:
আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে চট্টগ্রামের তাবলিগ জামাতের ২য় তম জেলা ইজতেমা।
হেদায়েতি বয়ান, ধর্মীয় আলোচনা ও ইবাদতের মধ্য দিয়ে তিনটি দিন কাটানোর পর আজ (২৮ জানুয়ারী) রোববার বেলা ১০টা ২০ মিনিটে আখেরি মোনাজাত শুরু হয়।
বাংলা ও আরবি ভাষায় প্রায় ৩০ মিনিটের এ মোনাজাত পরিচালনা করেন কাকরাইল মসজিদের ইমাম তাবলিগের শুরা সদস্য মাওলানা জুবায়ের।
মোনাজাতে অতীতের সব ভুলের জন্য সৃষ্টিকর্তার কাছে ক্ষমা চাওয়ার পাশাপাশি বিশ্বের সব মুসলমানের মঙ্গল কামনা করা হয়।
আখেরি মোনাজাতকে কেন্দ্র করে গতবারের মত এবারও চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি মহাসড়কের হাটহাজারী বাসস্ট্যান্ড হতে সরকারহাট পর্যন্ত প্রায় ৪ কিলিমিটার সড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। তারপরও হাজারো মুসলমান যানবাহন থেকে নেমেপায়ে হেঁটেই রওনা হন হাটহাজারী চারিয়া ইজতেমার পথে। আখেরি মোনাজাতের সময় ইজতেমাস্থলের চারপাশের ৩-৪ কিলোমিটার এলাকায় যেন তিল ধারণের জায়গা ছিল না। মোনাজাতের আগে ইজতেমা ময়দানে চটের সামিয়ানার নিচে বয়ান শোনে লাখো মানুষ। ময়দানে জায়গা না পেয়ে আশেপাশের অলিগলি ও রাস্তায় পাটি, খবরের কাগজ, পলিথিন বিছিয়ে তাতেই অবস্থান নিতে দেখা যায় অনেক ধর্মপ্রান মুসল্লীকে। হাটহাজারী ও আশপাশের এলাকা থেকে বহু নারীও এসেছিলেন মোনাজাতে অংশ নিতে। ময়দানে ঢোকার অনুমতি না থাকায় তারা আশপাশের বিভন্ন বাসাবাড়ী ও আবাসিক ভবনের ছাদে অবস্থান নিয়ে মোনাজাতে হাত তোলেন।
আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে হাটহাজারীসহ আশপাশের এলাকার বিভিন্ন বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কারখানা, বিপণিবিতান ও অফিস এদিন বন্ধ ছিল।
এবার এ ইজতেমায় সৌদি আরব, ওমান, চীন, সুইডেন, ইন্দোনেশিয়া, জর্ডান, মিসর, আলজেরিয়া, দুবাই, কাতারসহ বিভিন্ন দেশের মোট ১৭০ জন বিদেশি মেহমান  এসেছেন।  এবারের ইজতেমায় ঠান্ডা জনিত কারনে কুতুবদিয়া ও সাতকানিয়া উপজেলার আগত ২ মুসল্লির মৃত্যু হয়। ইজতেমা উপলক্ষ্যে প্রশাসন ৫ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহন করেছেন।

Leave a Reply