,

Home » Top » দ্বিতীয় বিয়ের অনুমতি না পেয়ে স্ত্রীকে খুন, স্বামীর যাবজ্জীবন

দ্বিতীয় বিয়ের অনুমতি না পেয়ে স্ত্রীকে খুন, স্বামীর যাবজ্জীবন


সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৮ | ২:২০ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম ব্যুরো: দ্বিতীয় বিয়ের অনুমতি না দেওয়ায় অন্ত:স্বত্তা স্ত্রীকে খুনের দায়ে স্বামী মো. আনোয়ার উল্লাহকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন চট্টগ্রামের একটি আদালত। একই রায়ে আদালত তাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও দুই বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (৬ সেপ্টেম্বর) চট্টগ্রামের তৃতীয় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মুন্সী আব্দুল মজিদ এই রায় দিয়েছেন।

চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার ভুজপুর ইউনিয়নের কালাকুম গ্রামের বাসিন্দা দণ্ডিত আনোয়ার উল্লাহ রায় ঘোষণার সময় আদালতে হাজির ছিলেন। রায় ঘোষণার পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌসুলি ও চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা (পিপি) বিকে বিশ্বাস সারাবাংলাকে বলেন, আট মাসের অন্ত:স্বত্তা স্ত্রীকে রেখে আনোয়ার উল্লাহ আবার বিয়ে করতে উঠেপড়ে লেগেছিল। অনুমতি দেওয়ার জন্য তিনি স্ত্রীকে চাপ দিচ্ছিলেন। কিন্তু স্ত্রী সম্মত না হওয়ায় তাকে শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়। দণ্ডবিধির ৩০২ ধারায় দায়ের হওয়া মামলায় রাষ্ট্রপক্ষ সন্দেহাতীতভাবে অভিযোগ প্রমাণ করতে পারায় আদালত একমাত্র আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন।

২০০০ সালের ২২ এপ্রিল রাতে নিজ ঘরে স্ত্রী লাইলী বেগমের হাত-পা বেঁধে গলায় রশি পেঁচিয়ে তাকে নৃশংসভাবে খুন করে আনোয়ার উল্লাহ। পরদিন লাইলীর বাবা কামাল উল্লাহ বাদী হয়ে ফটিকছড়ি থানায় মামলা দায়ের করেন।

ওই মামলায় ২০০১ সালের ২৭ জানুয়ারি আনোয়ার উল্লাহকে আসামি করে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। ২০০১ সালের ৮ জুন অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর পর ১২ জনের সাক্ষ্য নেয় রাষ্ট্রপক্ষ। আসামির পক্ষে পাঁচজন আদালতে সাফাই সাক্ষ্য দেন।

অতিরিক্ত পিপি বি কে বিশ্বাস সারাবাংলাকে বলেন, খুনের পর লাশের পাশে একটি বিষের বোতল রেখে দেওয়া হয়েছিল। বিষ খেয়ে লাইলীর মৃত্যু হয়েছে এটা দেখানোর জন্য স্বামী পরিকল্পিতভাবে এই কাজ করেছিল। কিন্তু ২০০০ সালের ২১ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগ থেকে দেওয়া ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়- বিষপানে নয়, তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে।

আদালতে সাফাই সাক্ষীরাও বিষপানের বিষয়টি তুলে ধরেছিলেন। তবে রাষ্ট্রপক্ষ সেই সাক্ষ্য মিথ্যা প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে।’ বলেন রাষ্ট্রপক্ষের এই আইনজীবী

Leave a Reply