,

Home » Top » সুফী সাধক, পীর আউলিয়াদের ত্যাগের বিনিময়ে উপমহাদেশে ইসলাম এসেছে : মুফতি ছৈয়দ শামছুদ্দোহা বারী

সুফী সাধক, পীর আউলিয়াদের ত্যাগের বিনিময়ে উপমহাদেশে ইসলাম এসেছে : মুফতি ছৈয়দ শামছুদ্দোহা বারী

উপমহাদেশের বরেণ্য সুফি সাধক হযরত মখদুম শাহ জুলফিকার আল্লামা ছৈয়দ হাফেজ আবদুল বালী শাহজী পীর (রহ)’র পালনকতৃত পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) উপলক্ষে আয়োজিত মাহফিলে বক্তারা বলেন, পীর আউলিয়াদের ত্যাগের বিনিময়ে এ উপমহাদেশে বিশ্ব নবীর (দ.) প্রবর্তিত ইসলাম এসেছে। ছৈয়দ আবদুল বারী শাহজী পীর (রহ.)’র জাঁ-নশীন খলিফা ও দরবারে বায়ীয়ার সাজ্জাদানশীন পীরে কামেল আল্লামা মুফতি ছৈয়দ মুহাম্মদ শামছুদ্দোহা বারী (মজিআ)’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ১২ মাঘ স্মরণে ৫০তম পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) মাহফিলে মেহমানে আ’লা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ভারতের দিল্লির দরবারে নেজাম উদ্দীন মাহবুবে ইলাহির গদ্দীনশীন পীর হযরতুল আল্লামা খাজা ছৈয়দ শরীফ নেজামী (মজিআ)। তিনি বলেন, মাযহাব অনুসরণ করা একান্ত জরুরী। তিনি আরো বলেন, কোরআন সুন্নাহর আলোকে যদি পারিবারিক ও সামাজিক জীবন পরিচালনা করা যায়, তাহলে কোন অবস্থাতেই একে অপরের সাথে দ্বন্ধে লিপ্ত হবে না।
২৭ জানুয়ারি শনিবার অনুষ্ঠিত মাহফিলে প্রধান অতিথি ব্যারিস্টার মুহিবুল হাসান চৌধুরী পাঠানো শুভেচ্ছা বার্তায় বলেন, শরিয়ত ত্বরীকতের সমন্বয়ে অনন্য মডেল দরবারে বারীয়া শরীফ । আমার পিতা চট্টলবীর এবি এম মহিউদ্দীন চৌধুরী সমস্ত সুন্নি দরবারের বিশেষ করে দরবারে বারীয়া শরীফের হিতাকাঙ্খী ছিলেন। দরবারের সাজ্জাদানশীন মুফতি সৈয়দ শামছুদ্দোহা বারী (মজিআ) অত্র অনুষ্ঠানে আমার পিতাকে স্মরণ রাখাতে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। আমি ও আমার পিতার মত সুন্নিয়তের খেদমত করার আশা রাখছি, ইনশাআল্লাহ।
চান্দগাঁওস্থ দরবারে বারীয়ার খাজা মখদুম শাহ জুলফিকার মঞ্জিল বাগান বাড়ীতে অনুষ্ঠিত মাহফিলে বিশেষ মেহমান ছিলেন দিল্লীর পীরজাদা সৈয়দ মুহাম্মদ রেহমান নেজামী (মজিআ)। তিনি বলেন, শরীয়ত ছাড়া তরিকত হয় না, নবী প্রেম না থাকলে পরিপূর্ণ মু’মিন হওয়া যায় না। মাহফিলে বক্তারা আরো বলেন, শরীয়ত তরিকত তথা সুন্নিয়তের খেদমতের আঞ্জাম দিয়ে যাচ্ছেন, শাহজী পীরের সুযোগ্য আওলাদ জাঁ-নশীন খলিফা ও সাজ্জাদানশীন পীরে কামেল আল্লামা মুফতি ছৈয়দ মুহাম্মদ শামছুদ্দোহা বারী (মজিআ)।
দরবারে বারীয়ার সাজ্জাদানশীন পীরে তরিকত আল্লামা মুফতি ছৈয়দ শামছুদ্দোহা বারী (মজিআ) তার পীর মুর্শিদ ও আব্বাজান কেবলার প্রবর্তিত ও নির্দেশিত ঐতিহাসিক ১২ মাঘ স্মরণে আয়োজিত মিলাদুন্নবী মাহফিলে বলেন,আব্বা হুজুরের প্রবর্তিত মিলাদুন্নবী (দ.) মাহফিলের জন্য আমার জীবন উৎসর্গ করেছি, আজীবন এ মাহফিলে চলবে ইনশাআল্লাহ। ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) উদ্যাপন কমিটির উদ্যোগে অনুষ্ঠিত মাহফিলে আমৃত্যু প্রধান অতিথি এ বি এম মহিউদ্দীন চৌধুরীসহ যারা দুনিয়া থেকে বিদায় নিয়েছেন তাদের মাগফেরাত কামনা এবং বৃহত্তর চট্টগ্রাম,উত্তর বঙ্গ ও ভারতের দিল্লি, কুয়েত প্রবাসী, ত্রিপুরাসহ বিভিন্ন স্থান থেকে আগত হাজার হাজার ভক্ত ও মুররিদানের উদ্দেশ্যে গুরুত্বপূর্ণ নসীহত পেশ ও আখেরী মুনাজাত পরিচালনা করেন শাহজী পীরের জাঁ-নশীন খলীফা ও দরবারে বারীয়ার সাজ্জাদানশীন পীরে কামেল আল্লামা মুফতি ছৈয়দ মুহাম্মদ শামছুদ্দোহা বারী (মজিআ)। শাহজাদা ছৈয়দ আবুল মোকাররম বারীর পরিচালনায় মাহফিলে বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন শুকছড়ি দরবারের ছৈয়দ মুহাম্মদ এহছানুল হক চিশতী (মজিআ)। বক্তব্য রাখেন, মাওলানা মুহাম্মদ এনাম রেজা আলকাদেরী, মুফতি শাহজাদা ছৈয়দ সাইফুল ইসলাম বারী, মৌলানা হাফেজ ছৈয়দ এরশাদুল ইসলাম বারী, মাওলানা রায়হানুল ইসলাম কাদেরী। উপস্থিত ছিলেন, তরিকত উল্লাহ মাইজভাণ্ডারী নুরুল হুদা আমিরী, বোরহান উদ্দিন হাফেজ নগরী, মাওলানা খায়রুল আমিন চিশতি সহ ফরহাদাবাদ, ফতেপুর, বারীয়া মুনিরিয়া ও জাঁহাগীরিয়াসহ বিভিন্ন দরবারের আওলাদগণ।

Leave a Reply